Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype

ফেসবুকে তার অনুগামীর সংখ্যা ৫ লক্ষেরও বেশী, বাংলাদেশের অভিনয় এবং রাজনৈতিক জগতে এক ভীষণ পরিচিত মুখ বললে অত্যুক্তি করা হবে না। তবে সাধারণ মানুষ তাকে কোনও দিনই সেভাবে গুরুত্ব দেয়নি, বারে-বারেই তিনি সর্ব সাধারণের কাছে হাসির খোরাক হয়েছেন, তার অভিনয় থেকে নির্বাচনের লড়াই সবেতেই তার প্রাপ্তি শুধুমাত্র অবজ্ঞা আর বিতর্ক ।   

এই অবহেলিত ও বিতর্কিত অভিনেতা আর কেউ নন বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় হিরো আলম। বিতর্কের জেরে বারবার শিরোনামে উঠে এসেছে তাঁর নাম। এবারও তাঁর নাম উঠে এলো খবরের শিরোনামে। তবে এবার আর বিতর্ক নয়। সমালোচকদের যোগ্য জবাব দিয়ে মানবতার পরিচয় দিলেন তিনি। দুঃস্থ, অসহায়, না খেতে পাওয়া মানুষদের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেতা। দিলেন চাল, ডাল, তেল, আলু-সহ প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য।

করোনার কড়া নজর থেকে বাদ পড়েনি বাংলাদেশও। সেখানেও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন একাধিক মানুষ। ফলে সেখানেও চলছে লকডাউন। তার জেরে যারা শ্রমিক শ্রেণীর মানুষজন,  তাদের বন্ধ হয়ে গেছে উপার্জনের সমস্ত পথ। টাকা না পেলে খাবারের জোগান কীভাবে করবেন, তা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তিত তাঁরা। দু’বেলা,  দু’মুঠো অন্ন জোগাড় করা এখন সবথেকে কষ্টকর ব্যাপার। এমন অবস্থাতেই গরীবের ত্রাতা হিসেবে এলেন হিরো আলম। করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার পাশাপাশি দুঃস্থ মানুষগুলির কথা ভেবে চিন্তিত হিরো আলম। তাই তাঁদের পাশে এগিয়ে এসেছেন বাংলাদেশের এই জনপ্রিয় অভিনেতা। দেশের উত্তর জনপদ জেলা বগুড়া-৪ আসনের শেরপুর ও নন্দীগ্রামের মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি।  আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম ওই এলাকার ৫০০ দরিদ্র পরিবারকে চাল, ডাল, তেল, লবণ-সহ প্রয়োজনীয় উপকরণ দান করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, “নিজের সামর্থ্যে যা আছে, তাই দিয়েই নিজের এলাকার মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছি”। অভিনেতা আরও বলেন, “আমি যা পেরেছি করেছি। সমাজের বিত্তবানরাও এই মানুষগুলোকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসুক আমি তা চাই।”

হিরো আলম আরও জানিয়েছেন, “আমি ওঁদের দুঃখ বুঝি। কারণ, আমিও তো একদিন এমনই দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিলাম। এখন হয়তো কিছুটা আল্লাহ দিয়েছেন, যতটুকু আল্লাহ দিয়েছেন সেই সামর্থ্য অনুযায়ী আমি পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি।”

Share on facebook
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp