Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype

এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা লক্ষাধিক, সারা বিশ্ব এই মুহূর্তে এক অদৃশ্য দড়ি টানাটানির প্রতিযোগিতায় শামিল। একপ্রান্তে রয়েছে COVID-19 তো আরেক প্রান্তে রয়েছে বিশ্বের কয়েক লক্ষ চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। যারা নিজেদের জীবনকে প্রায় একপ্রকার বাজি রেখেছেন করোনা ভাইরাসকে হারানোর জন্যে।
বিশ্বজুড়ে এই মারণ রোগের ছোবলে ইতিমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন বহু চিকিৎসক, আক্রান্ত আরও কয়েকশো, ভারতও এর ব্যতিক্রম নয় । কিন্তু তারপরও যুদ্ধক্ষেত্র থেকে সরে যাননি সাদা অ্যাপ্রোন ধারী যোদ্ধারা। ক্রমাগত তারা যুদ্ধ করে চলেছেন অদৃশ্যমান এই শত্রুর সাথে।
এরকমই এক সাহসী যোদ্ধার খোঁজ পাওয়া গেল তিলোত্তমা কলকাতার বুকে। যখন করোনায় আক্রান্ত রোগীকে নিয়ে যেতে ভীত অ্যাম্বুলেন্সে চালক, এমনকি তার সাথে একই গাড়িতে যেতে দ্বিধাগ্রস্ত হাসপাতালের কর্মীরা, তখন সেই দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন বেলেঘাটা আইডির চিকিৎসক যোগিরাজ রায়, পৌঁছে দিয়ে এলেন হাসপাতালে।
কিছুদিন আগেই বেলেঘাটা আইডিতে ভরতি হন বছর ৫৭-র এক ব্যক্তি। মূলত, করোনার উপসর্গ নিয়েই হাসপাতালে ভরতি হন তিনি। রিপোর্টও আসে পজিটিভ । এরপর হাসপাতালে থাকতেই তার শারীরিক অবস্থার ক্রমাগত অবনতি ঘটতে থাকে এবং পরিস্থিতি আরও সংকটময় হয়ে ওঠায় বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরের প্রয়োজন পড়ে । সমস্যার সুত্রপাত এখান থেকেই, রোগীকে ভেন্টিলেশান যুক্ত অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন হয় অথচ সেই যন্ত্র চালানোর মতন দক্ষ কর্মী খুঁজে বের করতে হিমসিম খায় হাসপাতাল কতৃপক্ষ। অবশেষে ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিটের একজন কে খুঁজে পাওয়া গেলেও সমস্যা থেকেই যায় কারণ তিনিই পুরো হাসপাতালের একমাত্র CCU-টেকনিশিয়ান, তিনি হাসপাতালের বাইরে গেলে হাসপাতালের দায়িত্বে কে থাকবেন ? এমন ঘোরতর পরিস্থিতি দেখেই এগিয়ে আসেন ডাক্তার যোগিরাজ রায়। নিজে পিপিই ড্রেস পরে ওই একই অ্যাম্বুলেন্সে করে অসুস্থ ঐ ব্যক্তিকে নিয়ে যান সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানে ভর্তির সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে পুনরায় ফিরে আসেন বেলেঘাটা আইডি তে।
যখন সাধারণ মানুষ করোনা রোগীর সংস্পর্শ এড়িয়ে চলছেন, রোগীর আত্মীয়স্বজনরাও সঙ্গে যেতে পারছেন না আপনজনের কাছে, সেই সময় চিকিৎসক ও হাসপাতালের এমন মানবিক সিদ্ধান্ত অবশ্যই প্রশংসনীয়।

Share on facebook
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp