Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype

জন্মের সময়ে শিশুকে কি কি টীকা দেওয়া আবশ্যক?

বিসিজি, ওরাল পোলিও ড্রপ, হেপাটাইটিস বি : এই তিনটি টীকা জন্মের সময়ে শিশুকে দেওয়া হয় ।

কোন কোন টীকা দেওয়ার পর শিশুর জ্বর আসতে পারে?

যে কোনো টীকা দেওয়ার পরেই জ্বর আসতে পারে বা টীকাকরণের স্থানে ব্যথা হতে পারে । তবে 6 সপ্তাহ, 10 সপ্তাহ ও 14 সপ্তাহে পেন্টাভ্যালেন্ট ভ্যাকসিন দেওয়ার পর জ্বর আসার সম্ভাবনা বেশী থাকে ।

জ্বর বা ব্যথা হলে কি করা উচিত?

টীকার স্থান যদি লাল হয়ে ফুলে ওঠে, সেখানে ঠান্ডা সেঁক দিন । কোনো মলম লাগাবেন না, মালিশ করবেন না। প্যারাসিটামল ড্রপ বা সিরাপ দিতে হবে আপনার চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ।

টীকা করণের পর কি কি হলে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতে হবে ?

টীকা করণের পরে সিরিয়াস এডভার্স এফেক্ট প্রায় দেখাই যায় না । তবু যদি জ্বর, ব্যথা, অতিরিক্ত কান্না, খিঁচুনি, পা তুলতে না পারা, হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া এগুলি হয়, সঙ্গে সঙ্গে শিশুকে নিকটবর্তী হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যেতে হবে ।

সরকারি টিকা বাদে আর কি কি টিকা নেওয়া আবশ্যিক?

পিসিভি ( নিউমোকক্কাল ভ্যাকসিন), ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন, টাইফয়েড ভ্যাকসিন,  এম এম আর ভ্যাকসিন, হেপাটাইটিস এ ভ্যাকসিন, ভ্যারিসেলা ( চিকেন পক্স) ভ্যাকসিন, এইচ পি ভি ভ্যাকসিন ( হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস) নেওয়া জরুরি ।

ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন কতবার নিতে হবে?

ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন প্রথম দেওয়া হয় শিশুর 6 মাস বয়সে । এর একমাস পরে, অর্থাৎ সাত মাস বয়সে দ্বিতীয় ডোজটি দেওয়া হয় । তারপর থেকে প্রতি বছর একটি করে ডোজ নিতে হবে । এটি নেওয়ার জন্য বয়সের কোনো ঊর্দ্ধসীমা নেই।

টাইফয়েডের টিকাও কি বারবার নিতে হয়?

না, টাইফয়েড কঞ্জুগেট ভ্যাকসিন 6 মাসের বেশি বয়সের যে কোনো শিশুকে দেওয়া যেতে পারে । একটি ডোজ ই যথেষ্ট ।

জন্মের সময়ে তো হেপাটাইটিসের টিকা দেওয়া হয় তাহলে একবছর বয়সে আবার দিতে হবে?

জন্মের সময়ে হেপাটাইটিস বি টিকা দেওয়া হয় । এক বছর বয়সে হেপাটাইটিস এ টিকা দেওয়া হয় ।দুটি সম্পূর্ণ আলাদা ।

ভ্যাকসিন সময় মত দেওয়া হয়নি দেরি করে কি দেওয়া যাবে?

ভ্যাকসিন নির্দিষ্ট সময় বা শেডিউল অনুসারে দেওয়াই উচিত । দেরি হয়ে থাকলে যত শীঘ্র সম্ভব নিকটবর্তী স্বাস্থ্যকেন্দ্র বা শিশু বিশেষজ্ঞ র সাথে যোগাযোগ করুন । বেশিরভাগ টিকাই দেরি হলেও দেওয়া যায় । তবে কোনো কোনো টিকা নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যেই দিতে হয় । যেমন, রোটাভাইরাস ভ্যাকসিন বা নিউমোকক্কাল ভ্যাকসিন । খুব দেরি হলে এগুলি দেওয়া যায় না ।

বাড়িতে পোষা কুকুর আছে কুকুরকে ভ্যাকসিন দেওয়া আছে শিশুকে কি দিতে হবে?

বাড়িতে যদি পোষা কুকুর থাকে, শে আপনার শিশুকে না কামড়ালেও, শিশুকে দুটি ডোজ এন্টি রেবিজ ভ্যাকসিন দেওয়া উচিত । একে বলে প্রি এক্সপোজার প্রোফাইল্যাক্সিস । তবে এর পরেও যদি বাচ্চাকে কুকুর কামড়ায় , তাহলে আবার দুটি ডোজ নিতে হবে ।

আমার বাচ্চাকে আগে একবার রেবিজের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে আবার কুকুর কামড়েছে আবার কি ভ্যাকসিন নিতে হবে?

যদি রেবিজের টিকা নেওয়ার তিন মাসের মধ্যে কুকুর কামড়ায়, তাহলে আর নিতে হবে না । কিন্তু তিন মাস পেরিয়ে গেলে আবার দুটো ডোজ নিতে হবে ।

মেনিঙ্গোকক্কাল ভ্যাকসিন নেওয়া কি আবশ্যক?

না, শিশুর যদি কোনো কঠিন অসুখ থেকে থাকে, যেমন হার্টের অসুখ, কিডনির অসুখ, ডায়াবিটিস, এইচ আই ভি, বা যদি স্প্লিনের অপারেশন হয়ে থাকে, তাহলে অবশ্যই নিতে হবে । এবং এর সাথে আরও কিছু টিকা নিতে হবে । এ বিষয়ে আপনার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সাথে যোগাযোগ করুন ।

ক্যান্সারের কি ভ্যাকসিন হয়?

মেয়েদের যোনিতে হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস ইনফেকশন থাকলে জরায়ুর ক্যান্সারের (সার্ভাইকাল ক্যান্সার) সম্ভাবনা বাড়ে । এই হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের টিকা আছে । 9 বছরের বেশি মেয়েদের দেওয়া উচিত ।

Share on facebook
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
অ্যাপেনডিসাইটিস
পেটের অসুখ gastrointestinal problems
Kathakali Poddar

অ্যাকিউট অ্যাপেনডিসাইটিস – সময় মত অপারেশন না হলে রোগীর জীবনহানিও ঘটতে পারে – কথাকলি পোদ্দার

 অ্যাপেনডিক্স তৃণভোজী প্রাণীদের ঘাস হজম করতে সাহায্য করে। মানব শরীরে এই অঙ্গটির তেমন কোন কার্যকলাপ

Read More »
স্লিপওয়াকিং
মনের কথা | Mental Health
Swarnava Roy Chowdhury

স্লিপওয়াকিং (Sleepwalking) বা ঘুমিয়ে হাঁটার অভ্যাস – ইঙ্গিত দিচ্ছে অন্য কিছুর।

স্লিপওয়াকিং (Sleepwalking) বা ঘুমিয়ে হাঁটার অভ্যাস বলতে বোঝান হয় ঘুমের মধ্যে চলাচল করার স্বভাবকেই। এই

Read More »
anxiety
অবসাদ ও উদ্বেগ Depression & Anxiety
Kathakali Poddar

মাত্রারিক্ত উদ্বেগ বা Anxiety আপনার দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব ফেলতে পারে- কথাকলি পোদ্দার

উদ্বেগ ( anxiety ) একটি সাধারণ আবেগ। এটি আপনার মস্তিষ্কের কোন মানসিক চাপ বা আসন্ন

Read More »