Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype

আই ভি এফ নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই। অনেকেই জানতে চান এই প্রক্রিয়া শুরু করার সময়ে  কী ধরণের প্রস্তুতি নেওয়া উচিৎ। যারা আই ভি এফ করানোর কথা ভাবছেন বা যাদের আই ভি এফ করাতেই হবে তাদের জন্য কিছু জরুরি পরামর্শ ।

ডায়েট:

প্রতি দিন পর্যাপ্ত ফল, শাকসব্জি এবং স্যালাড খাওয়া উচিৎ। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল শসা(শরীর ঠান্ডা রাখে), গাজর(ভিটামিন এ এবং অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট), লেবু(ভিটামিন সি), টম্যাটো (লাইকোপেনি এবং ভিটামিন),  তরমুজ ( ভিটামিন এ, সি এবং পটাশিয়াম), তৈলাক্ত মাছ ও আখরোট( ওমেগা ৩), আমন্ড(ভিটামিন ই)

শরীরচর্চা, নিয়মিত শরীরচর্চা করা দরকার:

  • হাঁটা
  • যোগা
  • অ্যারোবিক্স
  • ডান্স ক্লাস

জীবনধারায় পরিবর্তন:

  • ধূমপান ও মদ্যপান বন্ধ করা
  • নাইট শিফটে ডিউটি না করা
  • প্রতি দিন আধ ঘন্টার বেশি টিভি বা কম্পিউটার নয়
  • খুব প্রয়োজন ছাড়া মোবাইল ব্যবহার করবেন না
  • কাজের চাপ থেকে দূরে থাকুন
  • প্রতি দিন অন্তত আধ ঘন্টা রোদ লাগান
  • ভাজা বা প্যাকেটজাত খাবার বেশি না খাওয়া
  • অ্যাজিনোমোটো না খাওয়া
  • সংরক্ষিত খাবার যেমন জ্যাম বা আচার না খাওয়া

আই ভি এফ- এর জন্য ডাক্তারি প্রস্তুতি:

  • পুরো পদ্ধতি সম্পর্কে ভাবী মা-কে জানানো
  • প্রয়োজনে এগ ফ্রিজিং করা
  • এমব্রায়ো বা ভ্রূণ ট্রান্সফার সম্বন্ধে নির্দিষ্ট দিন জানিয়ে দেওয়া
  • হরমোন অ্যানালিসিস করা
  • সিমেন অ্যানালিসিস করা
  • ভাবী বাবা-মায়ের কোনো মেডিকেল সমস্যা থাকলে সেটির স্ক্রিনিং করা
  • PCOS এবং এন্ডোমেট্রিওসিস থাকলে তার স্ক্রিনিং করা
  • ভাবী মা-কে ইনজেকশন ও দরকারে বাবাকে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া
  • এ ছাড়া যদি কোনো সমস্যা দেখা দেয় তাহলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করা
Share on facebook
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp