Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp

প্রিটার্ম ডেলিভারি বা প্রিটার্ম বেবি (Premature Baby) কি? এদের যত্ন নেবেন কিভাবে?

প্রিটার্ম ডেলিভারি বা প্রিটার্ম বেবি বা Premature Baby কথাটার সঙ্গে আমরা কমবেশি সকলেই পরিচিত। কিন্তু এই প্রিটার্ম ডেলিভারি বা প্রিটার্ম বেবি আসলে কি সেটা জানা ভীষণ দরকার। আমরা প্রায় সকলেই জানি যে, স্বাভাবিক গর্ভাবস্থা বা প্রেগনেন্সি সাধারণত 38 থেকে 40 সপ্তাহ ধরে চলে। কিন্তু যদি কোনও সন্তান এই সময়ের  অর্থাৎ 35 থেকে 37 সপ্তাহের আগে ভূমিষ্ঠ বা ডেলিভারি হয় তখন তাকে প্রিটার্ম ডেলিভারি ধরা হয়। এই সন্তান কে আমরা প্রিটার্ম বেবি বলি।

প্রিটার্ম ডেলিভারি বা প্রিটার্ম বেবি -র কারণ কি ?

প্রিটার্ম ডেলিভারি মুলে রয়েছে স্ট্রেস। যেকোনো রকম অসুস্থতার মূলে রয়েছে স্ট্রেস। প্রেগনেন্ট অবস্থায় যত সুস্থ থাকবেন তত প্রিটার্ম ডেলিভারি এর সম্ভবনা কমবে। প্রিটার্ম ডেলিভারি এর আরও কারণের মধ্যে রয়েছে, বাচ্চার কম নড়াচড়া, সংক্রমণ এর ফলে মায়েদের ক্ষেত্রে জলভেঙ্গে যাওয়া। বাচ্চা মায়ের গর্ভে থাকাকালীন একটি আস্তরণের মধ্যে তরলে ভাসমান অবস্থায় থাকে অনেক সময় সংক্রমণ এর ফলে আবরণ ছিন্ন বা ক্লিয়ার হয়ে গেলে বাইরের আবহাওয়ার সঙ্গে বাচ্চার সংযোগ ঘটে যা পরবর্তীকালে সেই সন্তান এবং মায়ের পক্ষে বিপদজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। এই কঠিন পরিস্থিতি এড়িয়ে যেতে গাইনোকলিস্ট ডাক্তাররা সময়ের আগেই বা প্রিটার্ম ডেলিভারি করিয়ে থাকেন।

Stress during pregnancy

প্রিটার্ম বেবি-দের অতিরিক্ত সুরক্ষার প্রয়োজন কেন হয় ?

বর্তমান সময়ে উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থার সৌজন্যে 33 থেকে 35 সপ্তাহের প্রিটার্ম ডেলিভারিতেও খুব একটা সমস্যা হয়না , তবুও শিশুর নিরাপত্তার কথা ভেবে  চিকিৎসকরা প্রিটার্ম ডেলিভারি বাচ্চাদের 1 থেকে 2 দিন NICU পর্যবেক্ষণে রাখেন ।এছাড়াও এই সময় বাচ্চাদের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা থাকতে পারে যেমন শ্বাসকষ্ট, হার্টের সমস্যা ইত্যাদি। চিকিৎসকরা বাচ্চার এই সমস্ত সমস্যা আছে কিনা তা চিহ্নিত করতেই এই সতর্কতা অবলম্বন করেন।

23 থেকে 25 সপ্তাহে ডেলিভারি কে এক্সট্রিম প্রিটার্ম ডেলিভারি বলে। এই এক্সট্রিম প্রিটার্ম ডেলিভারি বাচ্চাদের মূল সমস্যা ওজন নিয়ে। সাধারণত 2.5 কেজি বা তার বেশি ওজন বাচ্চাদের Normal Birth Weight, 1.5 কেজি থকে 2.5 কেজি ওজন Low Birth Weight,  এবং Premature বাচ্চাদের ওজন কমতে-কমতে 1 কেজিরও কম হয়ে থাকে। Low Birth Weight এর বাচ্চাদের ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম সমস্যার সম্ভবনা বেশি থাকে।

চিকিৎসকরা মনে করেন 20 সপ্তাহের যত পরে সন্তান জন্ম গ্রহণ করে,  তার সুস্থ থাকার হার তত বেশী অর্থাৎ কোনও সন্তান যদি ২৮ সপ্তাহের পর জন্মগ্রহণ করে তাহলে  তার সুস্থ থাকার সম্ভাবনা ২৪ বা ২৫ সপ্তাহে জন্মানো বাচ্চার তুলনায় অনেক বেশী থাকে ।

বেবি 1

সুস্থ বাচ্চার তুলনায় প্রিটার্ম বাচ্চাদের extra care এর প্রয়োজন বেশি। প্রিটার্ম বাচ্চাদের ক্ষেত্রে ওজন কম,  রোগ প্রতিরোধ এর ক্ষমতা কম এবং সংক্রমণ সম্ভবনা বেশি থাকে। হাসপাতাল থেকে মুক্তি পাওয়ার আগেই প্রিটার্ম বাচ্চাদের ক্ষেত্রে Respetory Symtoms, Feeding Symtoms কিছু লক্ষণ বলে দেওয়া হয়।

প্রিটার্ম বেবি-দের সুরক্ষায় পরিবার ও মায়ের ভূমিকা

প্রিটার্ম বাচ্চাদের বিশেষ ভাবে লক্ষ্য রাখা উচিত তাড়াহুড়ো করে ফিডিং না করানোই বাঞ্ছনীয় কারণ এই প্রিটার্ম বাচ্চাদের sucking reflex  তেমন বৃদ্ধি পায়না। যেহেতু শ্বাসনালী ও খাদ্যনালী খুবই  কাছাকাছি থাকে তাই তারাহুড়ো করে ফিডিং এর কারণে খাদ্য শ্বাসনালীতে প্রবেশ করতে পারে এবং মারাত্মক সমস্যার (Aspiration Pneumonia) সৃষ্টি  হতে পারে। এই ব্যাপারে মায়েদের বা পরিবারের সদস্যদের সকলকেই সাবধান থাকতে হবে। প্রিটার্ম বাচ্চার কোনো রকম সমস্যা দেখা দিলে তৎক্ষণাৎ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram
Share on whatsapp
সাবস্ক্রাইব করুন

স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন খবর, তথ্য এবং চিকিৎসকের মতামত আপনার মেইল বক্সে পেতে সাবস্ক্রাইব করুন.