নাক দিয়ে রক্ত পড়ার কারণ ও চিকিৎসা

হঠাৎ করেই নাক থেকে রক্ত পড়তে দেখলে স্বাভাবিক ভাবেই ভয় পায় মানুষ। যদিও প্রেশার বেড়ে যাওয়া নাক থেকে রক্ত পড়ার সরাসরি কোনো কারণ নয়, তবু উচ্চ রক্তচাপ এই প্রবণতা বাড়ায়। জীবাণুর সংক্রমণ হোক বা অক্সিজেনের ঘাটতি— নাক থেকে রক্ত বেরতে পারে এমন নানা কারণেই।

নাক দিয়ে রক্ত পড়ার কারণ কি ?

সাধারণত নাকের ঝিল্লি খুবই পাতলা এবং রক্তনালী গুলি অগভীর হওয়ার ফলে সামান্য আঘাতেই নাক থেকে রক্তপাতের সৃষ্টি হয়। এর বাইরে,বেশ কয়েকটি জিনিস নাকের নাক দিয়ে রক্তপাতের সূচনা করতে পারে। শীতকালে শুষ্ক হাওয়া, ঘরে তাপমাত্রা বৃদ্ধি করা বা শরীরকে অতিরিক্ত পরিমাণে গরম রাখা, আপেক্ষিক আর্দ্রতার হ্রাস পাওয়া ইত্যাদি নাক দিয়ে রক্ত পড়ার সাধারণ কারণ। এছাড়াও অন্যান্য কারণগুলি হলোঃ

  • বারবার নাক খোঁটা
  • নাক থেকে অতিরিক্ত পরিমাণে জল পড়া
  • পড়ে গিয়ে নাকে আঘাত পাওয়া বা অন্য কোনো  আঘাতের কারণে
  • ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
  • অ্যালার্জি
  • সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতার বৃদ্ধি , যেখানে হাল্কা বায়ু থাকে
  • সাইনাসের সংক্রমণ বা টিউমার জাতীয় সমস্যা
  • উচ্চ রক্তচাপ

নাক থেকে রক্তপাত বন্ধ করার উপায় কি ?

নাক থেকে রক্তপাত সাধারণত গুরুতর হয় না। সাধারণ কয়েকটি অভ্যাস করে বাড়িতে বসে নিজেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়:

মন থেকে শান্ত থাকতে হবে।আপনি যদি নার্ভাস হয়ে যেতে শুরু করেন তবে এটি আপনার নাক থেকে রক্তপাত বৃদ্ধি পেতে পারে। আরাম করার চেষ্টা করুন।

বসুন, শুয়ে থাকবেন না। আপনার মাথা আপনার বুকের উপরে রাখুন।

আপনার নাসারন্ধ্র কে বন্ধ করুন। মুখ দিয়ে শ্বাস নেওয়ার সময় 5 থেকে 10 মিনিটের জন্য  আপনার বৃদ্ধাঙ্গুলি এবং তর্জনী ব্যবহার করে আপনার নাকের নরম অংশে চাপ প্রয়োগ করে নাসারন্ধ্রকে বন্ধ রাখুন। এতে সেপ্টামের ওপর চাপ পড়ে৷ নাকের যে অংশে রক্তক্ষরণ হচ্ছে সে অংশে চাপ সৃষ্টি হওয়ার ফলে  রক্ত ​​প্রবাহ বন্ধ হয়।

একবার রক্তপাত বন্ধ হয়ে গেলে,নাকে স্পর্শ করবেন না বা কোনো আঘাত করবেন না। এটি আবার রক্তপাত শুরু করতে পারে। তবে যদি এটি পুনরায় চালু হয় তবে রক্তের জমাট বাঁধা থেকে মুক্তি পেতে আপনার নাকে আলতোভাবে আঘাত করুন। আপনি উভয় নাকের নাকের মধ্যে অক্সিমেটাজোলিন (আফ্রিন, মিউসিনেক্স বা ভিকস সিনেক্স) এর মতো একটি ডিকনজেস্টেন্ট স্প্রে করতে পারেন। তারপরে আপনার নাসারন্ধ্রটি বন্ধ করে এবং 5 থেকে 10 মিনিটের জন্য মুখ দিয়ে শ্বাস নিন।

রক্ত বেরলেই নাকের উপর চেপে ধরুন কাপড়ে জড়ানো বরফ টুকরো। এর সঙ্গেই নাক দিয়ে টানুন ঠান্ডা জল। এতে নাকের মিউকাস পর্দা জল পাবে, রক্ত বন্ধ হবে।

nosebleed treatment in bengali

অনেক সময়, বিশেষত শীতকালে নাকের ভিতরের শুকনো ভাব নাক থেকে রক্ত পড়ার অন্যতম কারণ। ঘরোয়া নুন-চিনির জল এই সমস্যা দূর করে। নাকের ভিতরে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে নুন-চিনির জল তুলোয় করে নাকের ভিতরে দিন। এতে সোডিয়ামও প্রবেশ করে শরীরে। রক্ত পড়া দ্রুত কমে।

গোলমরিচ গুঁড়ো মেশানো জল উদ্দীপকের কাজ করে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে এটি অত্যন্ত কার্যকর, ফলে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক করতে পারে। নাক দিয়ে রক্ত পড়লে এক চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো জলে মিশিয়ে খাইয়ে দিন রোগীকে। এতে করে অনেকটাই সুস্থ বোধ করবেন।

apple cider vinegar

বাড়িতে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মজুত রাখুন। কেবল রান্নার কাজেই নয়, নাক থেকে রক্ত পড়লেও এই ঘরোয়া উপাদান কার্যকর। একটি তুলোয় কিছুটা আপেল সাইডার ভিনিগার নিয়ে নাকের ভিতরে লাগান। ড্রপারে করে কয়েক ফোঁটা ফেলেও দিতে পারেন। এতে নাকের রক্তজালকগুলি মজবুত হয়ে রক্তপাত কমাতে সক্ষম হবে।

তবে প্রায়শই নাক দিয়ে রক্তপাত হলে এবং কখনও রক্তপাত ২০ মিনিটের বেশি স্থায়ী হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

যদি চিকিৎসক নাকের ওপর চাপ দিয়ে রক্তপাত থামাতে না পারেন, তাহলে কয়েকটি বিষয় তিনি চেষ্টা করে দেখতে পারেন৷

কটারাইজেশন

এই পদ্ধতিতে একটি রক্তনালী বন্ধ করে সেঁক দেওয়া হয়।  রক্তনালী বন্ধ করার জন্য একটি উত্তপ্ত বৈদ্যুতিন ডিভাইস বা সিলভার নাইট্রেট নামক রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়।

প্যাকিং

এই পদ্ধতিতে নাকের নাকের মধ্যে একটি ল্যাটেক্স বেলুন বা গজ ভরে দেওয়া হয়। এটিতে রক্তনালীতে বন্ধ হওয়া অব্ধি চাপ প্রয়োগ করা হয়।

কিভাবে নাক দিয়ে রক্তপাত প্রতিরোধ করা যায়?

 নাক দিয়ে রক্তপাত হওয়া সবক্ষেত্রে প্রতিরোধ করা সম্ভব হয় না, তবে আগে থেকে এইরূপ সম্ভাবনা কমাতে কয়েকটি উপায় অবলম্বন করা উচিত

যেমনঃ

  • নাকের ভিতরটি সবসময় আর্দ্র রাখার চেষ্টা করুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে নাকের নাকের ভিতর অল্প করে পেট্রোলিয়াম জেলি আলতো করে লাগান, দিনে তিনবার ব্যবহার করুন।
  • ব্যাকিট্রেসিন বা পলিস্পোরিনের মতো অ্যান্টিবায়োটিক মলমও ব্যবহার করতে পারেন।
  • হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করুন।
  • যথাসম্ভব ধূমপান কম করুন।
  • নাকের ভিতর হাত দিয়ে বারবার খুঁটবেন না।
  • খুব ঘন ঘন ঠান্ডা ও অ্যালার্জির ওষুধ ব্যবহার করবেন না।

মনে রাখবেন উপরিউক্ত উপায় গুলি অবলম্বন করে অল্প সময়ের মধ্যে না কমলে  অবিলম্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। কোনো অবস্থাতেই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো প্রকার ওষুধ খাবেন না।

Recent Posts

আমাদের সাম্প্রতিক পোষ্ট গুলি দেখতে ক্লিক করুন

Cancer (ক্যান্সার)

ক্যান্সারের লক্ষণ ও তার চিকিৎসা